রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০৮:০৭ পূর্বাহ্ন
add

বিপিএল চ্যাম্পিয়ন দলের প্রাইজমানি মোটে ১ কোটি টাকা!

রিপোটারের নাম / ৬৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১
nagoriknewsbd/photo

স্পোর্টস ডেস্কঃ

ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি থেকে শুরু করে ক্রিকেটার-কোচদের পারিশ্রমিক, পরিচলন ব‍্যয় এবং অন্যান্য সব কিছু মিলিয়ে এবারের বিপিএলের একেকটি ফ্র্যাঞ্চাইজির খরচ হবে ৫ কোটি টাকার আশেপাশে। কিংবা আরও বেশি। অথচ টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন দলের প্রাইজমানি মোটে ১ কোটি টাকা, রানার্স আপ পাবে স্রেফ ৫০ লাখ!

বিসিবির প্রধান নির্বাহী ও বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য নিজামউদ্দিন চৌধুরি এটির কারণ ব্যাখ্যা করলে জানালেন, ভবিষ্যতে তারা পুরস্কারের অঙ্ক বাড়াবেন।

প্রাইজমানিই যে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর একমাত্র আয়, তা অবশ্যই নয়। বড় একটা অংশ আসার কথা স্পন্সরশিপ থেকে। বিশ্বের বেশির ভাগ লিগে ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগেই এন্ডোর্সমেন্ট থেকে মোটা অঙ্কের আয় হয়। তবে বিপিএলে পেশাদার কোনো কাঠামো নেই, ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর নেই ধারাবাহিকতা। স্পন্সরদের আকৃষ্ট করাও তাই কঠিন।

অন্য বেশির ভাগ লিগের আয়ের লভ্যাংশ পায় ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো। বিপিএলে তা কখনোই হয়নি। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর জন্য তাই তেমন কোনো প্রণোদনাই নেই। প্রাইজমানি মোটা অঙ্কের থাকলে তবু ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর কিছুটা আকর্ষণ থাকত। কিন্তু প্রাইজমানির অঙ্কও অন্যান্য লিগের তুলনায় নিতান্তই কম

এবারের আইপিএলে চ্যাম্পিয়ন দলের পুরস্কার ছিল বাংলাদেশের মুদ্রায় প্রায় ২৩ কোটি টাকা। ভারতের বাজার, দর্শক-স্পন্সরদের আগ্রহ, টিভি স্বত্ত্ব থেকে আয়, সব কিছু মিলিয়ে আইপিএলের সঙ্গে অন্যান্য লিগের তুলনা চলে না। তবে এবার সিপিএলেও চ্যাম্পিয়ন দলের প্রাইজমানি ছিল প্রায় সাড়ে ৮ কোটি টাকা, পিএসএলে প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকা এবং বিগ ব্যাশে আছে প্রায় ৪ কোটি টাকা।

বিপিএলে কেন এত কম, বৃহস্পতিবার সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তা ব্যাখ্যা করলেন নিজাম উদ্দিন চৌধুরি।

“আপনারা জানেন, এটা একটা ‘ওয়ান অফ’ ইভেন্ট হচ্ছে। সেভাবেই এটা পরিকল্পনা করা। অনেক কিছু আছে, যেটা আমাদের আগের যে পরিকল্পনা ছিল এবং বিপিএলের নির্ধারিত মডিউল ছিল (সেভাবেই হয়েছে)। লং টার্ম একটা আমাদের আগামীতে পরিকল্পনা আছে যে শুরু করব। তখন হয়তো এই বিষয়গুলো আরও বড় আকারে দেখা যেতে পারে।”

আগামী বছর থেকে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে লম্বা সময়ের জন্য চুক্তির পরিকল্পনা করছে বিসিবি। প্রধান নির্বাহীর ইঙ্গিত সেদিকেই। যদিও এরকম পরিকল্পনা আগেও নানা সময়ে করা হয়েছে, বাস্তবায়ন হয়নি কখনোই।

এবারের বিপিএল শুরু আগামী ২১ জানুয়ারি, প্লেয়ার্স ড্রাফট আগামী সোমবার।

add

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ